অস্থিতিশীল ক্রিপটো মুদ্রার সুরক্ষায় আন্তরজাতিক নিতীমালা চায় জার্মানি

ক্রিপ্টো কারেন্সি এমন এক মুদ্রা ব্যাবস্থা যা কোন দেশের ব্যাংক কিংবা সরকার কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত নয়। ক্রিপ্টো কারেন্সি এমন এক মুদ্রা ব্যাবস্থা যা কোন আন্তরজাতিক কিংবা দেশীয় নিয়ন্ত্রক ছাড়াও স্বাধীন ভাবে পরিচালিত একটি অর্থ লেনদেন ব্যাবস্থা। বর্তমানে বাজারে বেশ কিছু ক্রিপ্টো কারেন্সি প্রচলিত আছে যেমন: বিটকয়েন, লাইটকয়েন, ইথিরিয়াম ইত্যাদি। যেহেতু এসকল অর্থ লেনদেন ব্যাবস্থার ওপর কোন দেশের সরকারের নিয়ন্ত্রণ নেই তাই এ সকল অর্থ লেনদেন ব্যাবস্থা ব্যাবহার করে বিভিন্য অপরাধী চক্র বিভিন্য অপরাধমূলক কার্যক্রম সংঘটিত করে থাকে যেমন: অর্থ পাচার, অর্থ ভাড়াটে অপরাধীকে অর্থ পরিশোধ ইত্যাদি। ডার্ক ওয়েবের সহায়তায় অনেকেই বিভিন্য অপরাধমূলক কার্য সংঘটিত করার লক্ষ্যে অপরাধী ভাড়া করে থাকে উদাহারণসরুপ বলা যেতে পারে, কেউ একজন আমার ওয়েবসাইটটি হ্যাক করতে চাইল কিন্তু সে নিজে হ্যাকিং জানে না তখন সে ডার্ক য়েব থেকে হ্যাকার ভাড়া করে আমার ওয়েবসাইটটি হ্যাক করতে পারে এবং আমার ওয়েবসাইট হ্যাক করে আমার সাইট থেকে মুল্যবান তথ্য চুরি করে নিতে পারে যা ব্যাবহার করে আমার কাছে অর্থ দাবি থেকে শুরু করে আমাকে বøাকমেইল প্রযন্ত করতে পারে। কোন হ্যাকারকে দিয়ে কাজ করানোর পর সেই হ্যাকারকে তো তার পারিশ্রমিক প্রদান করতে হবে তাইনা। অর্থ গ্রহণ করার জন্য হ্যাকারগণ প্রধাণত এসকল ক্রিপ্টো কারেন্সি ব্যাবহার করে থাকে কারণ এসকল ক্রিপ্টো কারেন্সি নেটওয়ার্কে সরকার, পুলিশ কিংবা আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কোন প্রকার নজরদারি কিংবা নিয়ন্ত্রণ থাকে না। তাই নিরাপদ অর্থ লেনদেনের জন্য অপরাধী চক্র ক্রিপ্টো কারেন্সি ব্যাবহার করে থাকে।

শুধু অপরাধীরাই যে ক্রিপ্টো কারেন্সি ব্যাবহার করে থাকে সেটি কিন্তু নয় অনেক অনলাই মার্কেটপ্রেস ক্রিপ্টো কারেন্সিতে প্রেমেন্ট গ্রহণ করে থাকে। এক কথায় ক্রিপ্টো কারেন্সির ভাল এবং মন্দ উভয় ব্যাবহারই হয়ে থাকে। কভিড ১৯ মহামারির পর থেকেই ক্রিপ্টো কারেন্সি বাজারে মন্দা নেমে আসে। করণা ভাইরাসের প্রভাবে সারা পৃথীবিতেই অর্থনৈতিক মন্দা শুরু হয় জনগনের ক্রয় ক্ষমতা ব্যাপক ভাবে কমে যায় ফলে জনগন নদগ টাকা বিনিয়োগ করার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে। দৈ›ন্দিন ব্যায় মেটাতে তাদের জমানো অর্থ খরচ করতে ব্যাদ্ধ হয় এতে করেই মূলত ক্রিপ্টো কারেন্সির বাজারে ব্যাপক ধস নামে আশংখাজনক ভাবে কমে যায় বিটকয়েন সহ বিভিন্য ক্রিপ্টো মুদ্রার দাম। ফলে ক্রিপ্টো মুদ্রায় বিনিয়োগকারীগণ ব্যাপক আর্থিক ক্ষতিক সম্মুখিন হন। ক্রিপ্টো মুদ্রার এ বোল দশা নজর কারে বিভিন্য দেশের সরকারের। যদিও বিভিন্য দেশের সরকার অনেক আগে থেকেই নাগরিকদের ক্রিপ্টো মুন্দ্রায় বিনিয়োগ করাতে নিরুতসাহিত করে আসছে। বাংলাদেশে ক্রিপ্টো মুদ্রা আদান প্রদান সম্পুর্ণ নিষিদ্ধ তবুও সরকারের বিধিনিষেধ অমান্য করে অনেক বাংলাদেশী ক্রিপ্টো মুদ্রা আদান প্রদান এবং ক্রিপ্টো মুদ্রায় বিনিয়োগ করে থাকেন।
অপরাধের দৈারাত্ব কমাতে এবং নাগরিকদের অর্থের নিরাপত্তা নিশ্চিতে বিভিন্য দেশ ক্রিপ্টো মুদ্রা ব্যাবহারে জনগণকে সচেতন হবার পরামর্শ দিয়ে আসছে তবে এবার এক ধাপ এগিয়ে জার্মানি ক্রিপ্টো মুদ্রা নিয়ন্ত্রণে আন্তরজাতিক নিতীমালা প্রনয়নের দাবি তুলেছে। জার্মানির জাতীয় বাজার নিয়ন্ত্রণ সংস্থার প্রধান এক অনুষ্ঠানে এ দাবি তোলেন তিনি আরও বলেন আমরা ক্রিপ্টো মুদ্রা শিল্পকে বড়দের খেলাঘরের মত বারতে দিয়েছি যা করাটা আমাদের ঠিক হয়নি। এখন সময় এসেছে ক্রিপ্টো মুদ্রা খাতকে নিয়ন্ত্রণ করতে আন্তরজাতিক নিতীমালা প্রনয়ন করা এজন্য আন্তরজাতিক সম্প্রদায়কে ভ‚মিকা রাখার আহবান করেন তিনি।

 

One thought on “অস্থিতিশীল ক্রিপটো মুদ্রার সুরক্ষায় আন্তরজাতিক নিতীমালা চায় জার্মানি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *