কুমাড়খালি থেকে রাজবাড়ী যাত্রা

তিলে খাজার জন্য বিক্ষাত কুষ্টিয়ার জেলার কুমারখালি উপজেলা থেকৈ আজ আমার গন্তব্য রাজবাড়ী জেলা। রাজবাড়ীতে নাকি একটি পুরোনো রাজপ্রাসাদ আছে সেটি দেখতে যাওয়াই আমার উদ্দেশ্য। এছাড়াও রাজবাড়ীতে রয়েছে একটি বিক্ষ্যাত শিশু পার্ক সেগুল দেখার জন্য আমার আর তর সইছিল না তাই আর দেরি না করে অতি দ্রুত ট্রেনের টিকেট কিনে ফেললাম। কুমারখালি রেল স্টেশনে ট্রেনের অপেক্ষায় দারিয়ে আছি, এমন সময় একটি বালক এস বলল’ ভাই আমাকে দুইডা টাকা দেবেন” ছেলেটাকে দেখে আমার খুব মায়া লাগল, আমি ছেলেটার হাতে একটি ২০ টাকা নোট ধরিয়ে দিয়ে বললম তুমি এ কাজ কেন কর তোমার কোন অবিভাবক নেই? ছেলেটি উত্তর দিল না ভাই আমার কেউ নেই।
ছেলেটির সাথে এসব কথা বলতে বলতে ট্রেন চলে আসল, ট্রেন আসার পর আমি ট্রেনে উঠে পরলাম। তবে আজ আমার কপাল খারাপ ছিল কারণ আজ আর ট্রেনে কোন সিট খালি পেলাম না তো কি আর করার দাড়িয়ে দাড়িয়েই রাজবাড়ী প্রর্যন্ত গেলাম। ১৭৬৫ সালে বর্তমান রাজবাড়ী জেলার কিছু অংশ পরিদপুর জেলা আর কিছু অংশ রাজশাহী জমিদারির অন্তরভুক্ত ছিল। পরবর্তিতে এ জেলা যশোর জেলার অন্তরভুক্ত ছিল। ১৮১১ সালে ফরিদপুর জেলা সৃষ্টি হলে রাজবাড়ীকে এর অন্তরভুক্ত করা হয়।

১৯৮৩ সালে প্রশাসনিক বিকেন্দ্রিকরণ সুরু করলে রাজবাড়ীকে থানা হিসেবে ঘোষনা করা হয়। এরপর ১৯৮৪ সালে পহেলা মার্চ রাজবাড়ীকে জেলা হিসেবে ঘোষনা করা হয়। বাজবাড়ী পৈাছে প্রথমে গেলাম খাবার হোটেলে, পেটে প্রচন্ড খুধা নিয়ে খেতে বসলাম। হোটেলের বেয়ারা এসে বলেলন’ মামা কি খাবেন? আমি ভাত,মুরগীর মাংস, আর সালাত অর্ডার করে খাবারের জন্য অপেক্ষা করতে থাকলাম। বেশ কিছুক্ষন পর আসল খাবার খাবার দেখে তো আমার জিভে জল চলে আসল, হোটেলটি রাজবাড়ী রেল স্টেশনের কাছেই অবস্থিত। খাওয়া শেষ করে বেড়িয়ে পরলাম ঘোরাঘুরি করার উদ্দেশ্যে। প্রথমে গেলাম রাজবাড়ী সরকারি কলেজ দেখতে। ২৩ এ জুন ১৯৬১ সালে রাজবাড়ী সরকারি কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়। কলেরে নির্মাণশৈলি আমার খুব পছন্দ হল, কলেজ দেখা শেষ করে চলে গেলাম রাজবাড়ী দেখতে রাজবাড়ীটি আর আগের অবস্থায় নেই। যে রাজ প্রাসাদে এক সময় রাজা মহারাজার যৈলুশ ছিল তা আজ সময়ের গর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। রাজবাড়ী লেবু চাষ, এবং চমচম মিষ্টির জন্য বিখ্যাত্

এ জেলার সব থেকে আকর্ষনিয় জায়গা হল মোহরপুর ও বারেকপুর গ্রাম। গ্রামটি এতটাই সুন্দর যে তা লিখে প্রকাশ করাটা আমার পক্ষে সম্ভব নয়। প্রাকৃতিক সৈন্দর্য যেন নেমে এসেছে এখানে দুটি গ্রাম হয়ে। রাজবাড়ী জেলায় দুইটিন অবস্থান করে আমি আবার আমার নিজের বাড়ীতে ফিরে আসি. বন্ধুরা আপনারা কি কখণও রাজবাড়ীতে গেছেন? গেলে অবশ্যই মন্তব্য করে জানাবেন আমাদের সাইট ভিজিট করার জন্য ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *