এবার ১০৩ জন কর্মি নিয়োগ দেবে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর

ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরে চাকরির সুযোগ মিলবে, ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর দেশের নাগরীকদের পাসপোর্ট প্রদান করে থাকে। আমরা যারা বিদেশে যেতে আগ্রহী সর্বপ্রথমে আমাদের একটি পাসপোর্ট করতে হয়। অনলাইনে আবেদন করে ব্যাংকে টাকা পরিশোধ করার ২১ দিন থেকে এক মাসের মধ্যেই সাধারণনত আমরা পাসপোর্ট হাতে পেয়ে থাকি। দেশের নাগরীকদের পাসপোর্ট তৈরি, পাসপোর্ট প্রদান ও পাসপোর্টে যদি ভুল তথ্য থেকে থাকে তবে তা সংশধন করে থাকে এই ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর, বাংলাদেশ সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধিনে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। বর্তমানে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রি হলেন, আসাদুজ্জামান খান এম, পি তিনি ১৯৫০ সালে ৩১ ডিসেম্বর বাংলাদেশের রাজধাণী ঢাকার সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।

দেশের উন্নয়নের সাথে সাথে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের কর্মকান্ডেও লেগেছে উন্নয়নের ছোয়া। সনাতন হাতে লেখঅ পাসপোর্টের পরিবর্তে মেশিন রিডাব্যল পাসপোর্ট চালু করে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর, তাপর পাসপোর্ট আরও নিরাপদ এবং সুরক্ষিত ও আধুনিক করার লক্ষ্যে ই পাসপোর্ট চালু করে প্রতিষ্ঠানটি। এখন ঘরে বসে অনলাইনের মাধ্যমে পাসপোর্টের জন্য আবেদন করা যায়। ৪৮ পাতার ১০ বছর মেয়াদি সাধারণ ডেলিভারি পাসপোর্টের জন্য আবেদনকারীকে ৫,৭৫০ টাকা ব্যাংকিং চ্যানেলে পরিশোধ করতে হয়। পাসপোর্ট অধিদপ্তরের এমন যুগান্তকারী পদক্ষেপের ফলে পাসপোর্ট প্রাপ্তিতে অনিয়ম এবং দুর্নির্তি বহুল অংশে হ্রাস পেয়েছে। জনগণের দোর গোড়ায় পাসপোর্ট সেবা পৌছে দেবার লক্ষে পাসপোর্ট আবেদন থেকে শুরু করে পাসপোর্টের সর্বশেষ অবস্থা সবটাই অনলাইটে পর্যবেক্ষন করা সম্ভব

আগের তুলনায় বর্তমানে অনেক দ্রæত পাসপোর্ট হাতে পাওয়া যায়, আগে হাতে লেখা আবেদন ফর্মের মাধ্যমে পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে হত, ফলে ফর্ম লেখক এবং ডাটা এন্ট্রি অপারেটরের ভুলের কারণে প্রচুর মানুষের পাসপোর্টের তথ্যতে ভুল দেখা যেত। কিন্তু বর্তমান সরকার পাসপোর্টের সকল কার্যক্রম ডিজিটালাইজ করার ফলে বর্তমানে এই ভোগান্তি থেকে পাসপোর্ট প্রত্যাশিগন অনেকটাই মুক্তি পেয়েছেন। তবে এখনও আবেদনকারীদের অদক্ষতা ও অগ্যতার কারণে অনেকের পাসপোর্টে ভুল তথ্য লিপিবদ্ধ হয়ে থাকে এজন্য পাসপোর্ট সংশধনের আবেদন করতে হয়। প্রয়জনীয় কাগজপত্র উপস্থাপন করে সংশধনের আবেদন করলে ভুল তথ্য সংশোধন করা যায়। সেবার মান বৃদ্ধি এবং আরও দ্রæত সেবা প্রদান করার লক্ষ্যে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর শুণ্য পদে জনবল নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ৬ টি ক্যাটাগরির পদে মোট ১০৩ জন কর্মি নিয়োগ করা হবে।

পদ পরিচীতি:

১. সাঁটলিপিকার কাম কম্পিউটার অপারেটর, এই পদে ৩ জন কর্মি নিয়োগ করবে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর।

২. সাঁটমুদ্রাক্ষরিক কাম কম্পিউটার অপারেটর, এই পদে সর্বমোট ৪ জন কর্মি নিয়োগ করা হবে।

৩. অফিস সহকারী, এই পদে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর নিয়োগ করবে ২৩ জন কর্মিকে

৪. অ্যসিষ্ট্যেন্ট অ্যাকাইন্ট্যান্ট, এই পদে নিয়োগ পাবেন সর্বমোট: ২৪ জন।

৫. ডেটা এন্ট্রি/ কন্ট্রোল অপারেটর, এই পদে নিয়োগ দেয়া হবে ৪৫ জনকে।

৬. রেকোর্ড কিপার, পদসংখ্যা: ৪

মোট ৪৬ টি জেলায় চাকুরি প্রত্যশিগণ আবেদন করতে পারবেন, তবে শারীরিক প্রতিবন্ধী কিংবা এতিমগণ দেশের যে কোন জেলায় আবেদন করতে পারবেন।

বিভাবে আবেদন করবেনঃ

চাকরি প্রত্যশিদের অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন ফরম পুরণ করতে হবে। এই লিংকে প্রবেশ করে আবেদন সম্পন্য করতে হবে।

বেতন গ্রেডঃ
১৩ থেকে ১৬।
আবেদনের শেষ সময়ঃ ২৩ জানুয়ারি ২০২৩ ইং

 

আরও বিস্তারিত তথ্য জানতে এই ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *